খবরের বিস্তারিত...


হযরত আবু বকর সিদ্দিক (রাঃ) ‘র ইন্তেকাল

আগস্ট 02, 2018 আক্বীদা

হযরত আবু বরক সিদ্দিক (রা) রসূলে খোদার (সা) ইন্তেকালের পর মাত্র দুই বৎসর তিন মাস জীবিত ছিলেন। হযরত ইবনে ওমর (রা) বলেন, “রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের বিরহ-ব্যথা তিনি সহ্য করিতে পারেন নাই। দিন দিনই কৃশ-দুর্বল হইয়া যাইতেছিলেন। এইভাবেই তিনি দুনিয়া হইতে শেষ বিদায় গ্রহণ করেন।” রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের ইন্তেকালের পর তিনিই সকলকে সান্ত্বনার বাণী শুনাইয়াছিলেন, কিন্তু তাঁহার নিজ অন্তরের দাহ একটুও শান্ত হয় নাই। একদিন বৃক্ষ শাখে একটি পাখীকে নাচিয়া বেড়াইতে দেখিয়া একটু উত্তপ্ত দীর্ঘ নিঃশ্বাস সহাকারে বলিতে লাগিলেন, “হে পাখী, কত ভাগ্যবান তুমি। গাছের ফল খাও আর শীতল ছায়ায় আনন্দে কালাতিপাত কর। মৃত্যুর পরও তুমি এমন স্থানে যাইবে, যেখানে কোন প্রকার জবাবাদিহির দায়িত্ব নাই। পরিতাপ! আবু বরকও যদি এমন ভাগ্যবান হইত!” কখনও কখনও বলিতেন “আফসোস! আমি যদি তৃণ হইতাম আর চতুষ্পদ জন্তু আমাকে খাইয়া ফেলিত।” এই সমস্ত দুঃখ ভারাক্রান্ত উক্তি হইতে অনুমান করা যায়, রসূলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের চির-বিদায়ের পর হযরত আবু বকরের হৃঙদয়ের ব্যথা কতটুকু উৎকট হইয়া উঠিয়াছিল।
পীড়ার সূচনা
ইবনে হেশাম বলেন, হযরত সিদ্দিকে আকবরের নিকট কিছু গোশ্ত উপহার আসিয়াছিল। তিনি হাঁরেস ইবনে কালদাসহ তাহা খাইতেছিলেন। এমতাবস্থায় হপরেস বলিলেন- “আমীরুল মোমেনীন, আর খাইবেন না। আমার মনে হয় উহাতে বিষ মিশ্রিত রহিয়াছে।” সঙ্গে সঙ্গেই তিনি খাওয়া বন্ধ করিয়া দিলেন, কিন্তু এই দিন হইতেই তাঁহাররা উভয়ে পীড়া অনুভব করিতে শুরু করেন। হিজরী ১৩ সালের ৭ই জুমাদাল উখরা সোমবার দিন তিনি গোসল কিরয়াছিলেন। ইহাতেই ছাণ্ডপ লাগিয়া জ্বর শুরু হইল। এই জ্বর আর সারিল না।শরীরে যে পর্যন্ত শক্তি ছিল রীতিমত মসজিদে আসিয়া নামায পড়ােইতে ছিলেন, কিন্তু রোগ যখন তীব্র হইয়া উঠিল, তখন হযরত ওমরকে ডাকাইয়া বলিলেন, “এখন হইতে আপনি নামায পড়াইতে থাকিবেন।”
কোন কোন সাহাবী আসিয়া বলিলেন, “যদি অনুমতি দেন বতে চিকিৎসক ডাকিয়া আপনার চিকিৎসার ব্যবস্থা করি।” জওয়াব দিলেন, চিকিৎসক আমাকে দেখিয়া ফেলিয়াছেন। সাহাবীগণ জিজ্ঞাসা করিলেন, তিনি কি বলিলেন? হযরত সিদ্দিক বলিলেন,- (আরবী*****
তিনি বলিয়াছেন, “আমি যাহা চাই তাহাই করি।”-(কোরআন)
হযরত ওমরের নির্বাচন
শরীর যখন খুব বেশী দুর্বল হইয়া গেল, তখন রসূলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের খলিফা নির্বাচনের কথা বিশেষভাবে ভাবিতে শুরু করিলেন। তিনি চাইতেন মুসলমানগণ যেন যে কোন প্রকার আত্মকলহ হইতে বাঁচিয়া থাকিতে পারে। এই জন্য তিনি বিশেষ চিন্তাশীল সাহাবীগণের মতামত গ্রহণ করতঃ নিজেই খলিফার নাম প্রস্তাব করার মনস্থ করিলেন। প্রথম তিনি আবদুর রহমান ইবনে আউফকে ডাকিয়া জিজ্ঞাসা করিলেন, ওমর সম্পর্কে আপনার মতামত কি? তিন বলিলেন, আপনি তাঁহার সম্পর্কে যত ভাল ধারণাই পোষণ করুন না কেন, আমার ধারণা তাহার চাইতেও ভাল। তবে তিন একটু কঠোর প্রকৃতির লোক। হযরত সিদ্দিক (রা) বলিলেন, তাঁহার কঠোরতা ছিল এই জন্য যে, আমি ছিলাম কোমল। যখন তাঁহার উপর দায়িত্ব আসিবে, তখন স্বাভাবিকভাবেই তিনি কোমল হইয়া যাইবেন। এই কথা শুনিয়া হযরত আবদুর রহমান ইবনে আউফ (রা) চলিয়া গেলেন। অতঃপর হযরত ওসমানকে ডাকাইয়া মতামত জিজ্ঞাসা করিলেন। হযরত ওসমান (রা) বলিলেন, আপনি আমার চাইতে ভাল জানেন। হযরত সিদ্দিক (রা) বলিলেন, তবুও আপনার মাতামত কি? জওয়াবে হযরত ওসমান (রা) বলিলেন, আমি এতটুকু বলিতে পরি, ওমরের চাইতে ভিতর অনেক ভাল এবং তাহার চাইতে যোগ্য ব্যক্তি এখন আমাদের মধ্যে আর কেহ নাই।
হযরত সাঈদ ইবনে যায়েদ এবং উসাইদ ইবনে হোযাএররর নিকটও অনুরূপভাবে পরাপমর্শ জিজ্ঞাসা করিলেন। হযরত উসাইদ (রা) বলিলেন, “ওমরের অন্তর পবিত্র। তিনি সৎকর্মশীলদের বন্ধু ও অসৎদের শত্রু। আমি তাঁহার চাইতে শক্ত ও যোগ্য ব্যক্তি আর দেখিতেছি না।”
হযরত সিদ্দিক (রা) অনুরূপভাবে বহু লোকের নিকট হযরত ওমর (রা) সম্পর্কে মতামত গ্রহণ করিতেছিলেন। সমগ্র মদীনায় প্রচারিত হইয়া গিয়াছিল, হযরত আবু বকর (রা) হযরত ওমর (রা)- কে তাঁহার স্থলাভিষিক্ত করিতে চান। খবর শুনিয়া হযরত তালহা (রা) তাঁহর নিকট আগমন করিয়া বলিতে লাগিলেন, আপনি জানেন, আপনার জীবদ্দশায়ই ওমর (রা) লোকদের সহিত কত কঠোর ব্যবহার করেন, আর এখন যদি তিনি খলিফা ইয়া যান তবে না জানি কি করিতে শুরু করিনঃ আপনি আল্লাহর দরবারে চলিয়া যাইতেছেন, ভাবিয়া দেখন, আপনি আল্লাহর নিকট উহার কি জওয়াব দিবেন। হযরত সিদ্দিক (রা) বলিলেন, আমি খোদাকে বলিব “আমি তোমার বান্দাদের উপর ঐ ব্যক্তিকেই নিযুক্ত করিয়া আসিয়াছি, যিনি সর্বশ্রেষ্ঠ ছিলেন।”
অসিয়তনামা
পরামর্শ গ্রহণ শেষ করিয়া তিনি হযরত ওসমানকে ডাকিয়া বলিলেন, “খেলাফতের অসিয়তনামা লিখিয়া ফেলুন।” কতটুকু লেখা হওয়ার পরিই হযরত সিদ্দিক (রা) বেহুশ হইয়া পড়িলেন। ইহা দেখিয়া হযরত ওসমান (রা) নিজ তরফ হইতই লিখিয়া দিলেন, “আমি ওমরকে খলিফা নিযুক্ত করিয়া যাইতেছি।” কিছুক্ষণ পর হুশ হইলে হযরত ওসমানকে বলিলেন, যে পর্যন্ত লেখা হইয়াছে আমাকে পড়িয়া শোনান। হযরত ওসমান (রা) সবটুকু পাঠ করিয়া শুনাইলে তিনি আল্লাহু আকবার বলিয়া উঠিলেন এবিং বলিতে লাগিলেন, “আল্লাহ তোমাদিগকে শুভ পরিণাম দান করুন।”-(আর-ফারুক্)
অতঃপর অসিয়তনামা হযরত ওসমান এবং একজন আনসারীর হাতে দিয়া দিলেন যেন মসজিদে নববীতে মুসলমানদের পাঠ করিয়া শুনাইয়া দেওয়া হয়। অতঃপর স্বয়ং অত্যধিক দুর্বলতার সত্ত্বেও ঘরের বারান্দার দিকে চলিয়া আসিলেন। তাঁহার বিবি হযরত উম্মে রুম্মান তাঁহর দুই হাত ধরিয়া রাখিয়াছিলেন, নীচে লোক সমবেত হইয়াছিল। তাঁহাদের উদ্দেশ করিয়া বলিতে লাগিলেন, “যাঁহাকে আমি খলিফা নির্বাচিত করিব, তাঁহাকে কি তোমরা গ্রহণ করিবে? আল্লাহর শপথ, আমি চিন্তা করিদে বিন্দুমাত্রও ত্রুটি করি নাই। তহাহা ছাড়া আমি আমার কোন নিকট-আত্মীয়কেও নির্বাচিত করি নাই। আমি ওমর ইবনে খাত্তবকে আমার স্থলাভিষিক্ত নির্বাচিত করিতেছি। আমি যাহা করিয়াছি তাহা মানিয়া লও।”
অসিয়তনামাটি ছিল নিম্নরূপ” “বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম : ইহা আবু বকর ইবনে আকু কোহাফার অসিয়তনামা; যাহা তিনি শেষ মুহূর্তে যখন দুনিয়া হইতে বিদায় গ্রহণ করিতেছেন এবং আখেরাতের প্রথম মুহূর্তে যখন তিনি পরপারে প্রবেশ করিতে উদ্যত, তখন লিপিবদ্ধ করাইতেছেন। ইহা ঐ সময়কার উপদেশ, যখন অবিশ্বাসীও বিশ্বাস স্থাপন করে, অসদাচারীও সংযত হয় েএবং মিথ্যাবাদী পর্যন্ত সত্যের সম্মুখে মাথা ঝুঁকাইয়া দেয়। আমি আমার পরে তোমাদের জন্য ওমর ইবনে খাত্তাবকে আমীর নিযুক্ত করিয়া যাইতেছি! সুতরাং তোমরা তাঁহার নির্দেশ মান্য করিও এবং তাঁহার অনুগত থাকিও। এই ব্যাপারে আমি আল্লাহ, আল্লাহর রসূল, ইসলাম এবং স্বয়ং আমার দায়িত্বের কথা বিশেষভাবে লক্ষ্য রাখিয়াছি. কোন ত্রুটি করি নাই। যাহারা অত্যাচার করিবে তাহার শীঘ্রই স্বীয় পরিণাম ফল দেখিতে পাইবে। ওয়াস সালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহে ওয়া বারাকাতুহু।”
অন্তিম উপদেশ ও দোয়া
অতঃপর তিনি হযরত ওমরকের নির্জনে ডাকিয়া কতগুলি প্রয়োজনীয় উপদেশ দিলেন এবং আল্লাহর দরবারে হাত উঠাইয়া বলিতে লাগিলেন:
“হে খোদা, আমি এই নির্বাচন এই জন্য করিয়াছি যেন মুসলমানদের মঙ্গল হয়। আমার ভয় ছিল, শেষ পর্যন্ত তাহারা আত্মকলহ ও ঝগড়া-বিবাদে লিপ্ত হইয়া না যায়! হে প্রভু, আমি যাহা বলিতেছি তুমি তাহা ভালভাবেই জান। আমার চিন্তভাবনা এই সিদ্ধান্তই গ্রহণ করিয়াছিল। এই জন্য আমি এমন এক ব্যক্তিকে আমীর নিযুক্ত করিয়াছি, যিনি সবচাইতে দৃঢ় ও ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন এবং মুসলমানদের সবচাইতে বেশী হিতাকাঙ্ক্ষী। আয় আল্লা, আমি তোমার নির্দেশেই মর-দুনিয়া ত্যাগ করিতেছি। এখন তোমার বান্দারা তোমার হাতেই সমর্পিতি হইতেছি। ইহারা তোমার বান্দা। ইহাদের ভাগ্যের ডোর তোমারই হাতে। হে আল্লা, মুসলমানদের জন্য সৎ শাসনকর্তা দাও। ওমরকে খলিফায়ে রাশেদীনের অন্তর্ভুক্ত কর এবং তাঁহার প্রজাদিগকে তাঁহার যোগ্যতা দ্বারা উপকৃত কর।”
হযরত আবু বকরের গভীর অন্তর্দৃষ্টি ও বেলায়েরেত মহৎ গুণেই খেলাফতের এই কঠিন সমস্যার সহজ সমাধান হইয়া গেল। পূর্বাপর গোটা মুসলিম সমাজের অভিমত, হযরত ওমরকে খেলাফতের জন্য নির্বাচন ইসলাম ও মুসলিম জাতির জন্য হযরত আবু বকরের এমন এক বিরাট অবদান, কেয়ামত পর্যন্ত যাহার আর কোন নজির মিলিবে না। হযরত ওমর (রা) মাত্র কয়েক বৎসরের মধ্যেই যাহা করিয়াছিলেন, এক কথায় বলিতে গেলে, ইসলামের যে শক্তি ভূপৃষ্ঠে বিভিন্ন অবস্থায় বিদ্যমান ছিল, সেই সবগুলিকে সংহত করিয়া আল্লাহর আরশ পর্যন্ত পৌঁছাইয়া দিয়াছিলেন।
দুনিয়ার হিসাব নিকাশ
হযরত আয়েশা (রা) বলেন, হযরত সিদ্দিকে আকবর (রা) আমাকে বাগানের বিশ সের খেজুর দিয়াছিলেন, যখন তাঁহার রোগ বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয় তখন বলিতে লাগিলেন, প্রিয় বৎস, আমি সর্বাবস্থায়ই তোমাকে সুখী দেখিতে চাই। তোমাদের দারিদ্র্য দেখিয়া আমার দুঃখ হয়। তোমাদের স্বাচ্ছন্দ্য দেখিলে আমি আনন্দিত হই। বাগানের যে খেজুর তোমাকে দিয়াছিলাম, যদি তুমি তাহা লইয়া গিয়া থাক তবে ভাল, অন্যথায় আমার মৃত্যুর পরই হযা আমার পরিত্যক্ত সম্পত্তি বলিয়া গণ্য হইবে। তোমার আরও দুই ভাই-বোন রহিয়াছে। এমতাবস্থায় এই খেজুরগুলি কোরআনের নির্দেশ মোতাবেক নিজেরদের মধ্যে বন্টন করিয়া নিও।
হযরত আয়েশা (রা) বলিলেন, “মাননীয় পিতা, আমি আপনার নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করিব। ইহার চাইতে অধিক সম্পদও যদি হইত, তবুও আপনার নির্দেশমত তাহা আমি ত্যাগ করিতাম।”
মৃত্যুর কিছুক্ষণ পূর্বে বলিলেন, “বাইতুল মাল হইতে আমি এই পর্যন্ত যে পরিমাণ বৃত্তি গ্রহণ করিয়াছি, তাহার হিসাব কর।” হিসাব করার পর জানা গেল, গোটা খেলাফত আমলে মোট ছয় হাজার দেরহাম বা পনের শত টাকা গ্রহণ করিয়াছেন। বলিলেন, “আমার ভূমি বিক্রয় করিয়া এখনই এই অর্থ পরিশোধ করিয়া দাও।” তৎক্ষণাৎ ভূমি বিক্রয় করতিঃ বাইতুল মালের টাকা পরিশোধ করিয়া দেওয়া হইল। এইভাবেই আল।লঅহর রসূলের হিজরতের বন্ধুর এক-একটি পশম বাইতুল মালের দায়িত্ব হইতে মুক্ত করা হইল। বাইতুল মালের টাকা পরিশোধ করার পর বলিলেন, “অনুসন্ধান করিয়া দেখ, খেলাফতের দায়িত্ব গ্রহণ করার পর আমর সম্পত্তি কোন প্রকার বৃদ্ধি পাইয়াছে কিনা? অনুসন্ধান করিয়া জানা গেল, খলিফা হওয়ার পর তাঁহার একটি হাবশী ক্রীতদাস, যে শিশুদের দেখাশোনা এবং মুসলিম জাগণের তরবারি পরিষ্কার করার জাক করিত, পানি আনার একটি উষ্ট্রী এবং এক টাকা চারি আনা মূল্যের একটি চাদর বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হইয়াছে। হিসাব শুনিয়া নির্দেশ দিলেন, আমার মুত্যুর পর ইইগুলি পরবর্তী খলিফার নিতট পৌছাইয়া দিও।
ইন্তেকালের পর উপরোক্ত বস্তুগুলি হযরত ওমরের নিকট উপস্থিত করা হইলে তিনি কাঁদিয়া ফেলিলেন এবং বলিতে লাগিলেন “হে আবু বকর, আপনি আপনার স্থলাভিষিক্তদের দায়িত্ব অত্যন্ত কঠিন করিয়া গেলেন।”
শেষ নিঃশ্বাসের সময়
হযরত আব বকরের জীবনের শেষ দিন ইরাকে যুদ্ধরত মুসলিম বাহিনীর সহকারী সেনাপতি মুসান্না মদীনায় পৌঁছিলেন। এই সময় আমীরুল মোমেনীন মৃত্যু যন্ত্রণার চরম অবস্থা অতিক্রম করিতেছিলেন। মুসান্নার আগমন সংবাদ জানিতে পারিয়া তৎক্ষণাৎ তাঁহাকে ডাকিয়া পাঠাইলেন। মুসান্না যুদ্ধক্ষেত্রের সকল খবর বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করিলেন এবং বলিলেন, “পারস্য সম্রাট কেসরা ইরাকে নূতন সৈন্য প্রেরণ করিয়াছেন।” সমস্ত খবর শুনিয়া এই অবস্থাতেই হযরত ওমরকে ডাকিয়া বলিলেন, “ওমর, আমি যাহা বলিতেছি, মনোযোগ দিয়া শ্রবণ কর এবং সেই অনুযায়ী কাজ কর। আমর মনে হয় অদ্যই আমার জীবন শেষ হইয়া যাইবে। যদি দিনের বেলায় আমার দম বাহির হয় তবে সন্ধার পূর্বেই এবং যদি রাত্রে হয় তবে সকাল হওয়ার পূর্বেই মুসান্নার সহিত সৈন্য প্রেরণ করিবে।” অতঃপর বলিলেন, “ওমর, যে কোন বিপদ মুহূর্তেও আল্লাহর নির্দেশ অথবা ইসলামের কোন কাজ পরবর্তী দিবসের জন্য মুলতবি রাখিও না। হযরত রসূলুল্লাহ (সা)- এর মৃত্যুর চাইতে বড় বিপদ আমাদের জন্য আর কি হইতেহ পারিত? কিন্তু তুমি দেখিয়াছ, ঐ দিনও আমার যা করণীয় ছিল তাহা আমি করিয়াছি। আল্লাহর শপথ, ঐ দিন যদি আমি আল্লাহর নির্দেশ কার্যকর করিতে যাইয়া অবহেলা করিতাম, তবে আল্লাহ আমাদের উপর ধ্বংসের শাস্তি অবতীর্ণ করিতেন; মদীনার ঘরে ঘরে কলহের আগুন জ্বলিয়া উঠিত। আল্লাহ যদি ইরাকে মুসলিম বাহিনীকে কৃতকার্য করেন, তবে খালেদের বাহিনীকে সিরিয়া সীমান্তে পাঠাইয়া দিও। কেননা, সে বিচক্ষণ এবং ইরাকের অবস্থা সম্পর্কে বিশেষভাবে অভিজ্ঞ ব্যক্তি।”
ইন্তেকালের সময় হযরত আবু বকর (রা) জিজ্ঞাসা করিলেন, “হযরত মোহাম্মদ (সা) কোন দিন ইন্তেকাল করিয়াছিলেন?” বলা হইল, সোমবার দিন। তখন তিনি বলিলেন, আমার আকাঙ্ক্ষা যেন আজই আমি বিদায় হই। যদি আল্লাহ আমার এই আকাঙ্ক্ষা পূর্ণ করেন, তবে আমাকেও রসূলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের পবিত্র কবরের নিকটে সমাহিত করিও।
ধীরে ধীরে শেষ নিঃশ্বাসের সময় নিকটবর্তী হইতেছিলেন। হযরত আয়েশাকে জিজ্ঞাসা করিলেন, হযরত মোহাম্মদ (সা)-কে কয়টি কাপড়ে কাফন দেওয়া হইয়াছিল? আয়েশা (রা) বলিলেন, তিন কাপড়ে। তিনি বলিলেন, আমাকেও তিন কাপড়ে কাফন দিও। এখন আমার শরীরে যে দুইটি চাদর আছে এইগুলি ধুইয়া দিও, আর একটি কাপড় বাহির হইতে ব্যবস্তা করিও। হযরত আয়েশা (রা) সমবেদনার সুরে নিবেদন করিলেন,- “আব্বাজান! আমরা এত দরিদ্র নই যে, নতুন কাফন কিনিতে সমর্থ হইব না।”
হযরত আবু বকর (রা) বলিলেন, “কন্যা, মৃতদের চাইতে জীবিতদের কাপড়ের বেশী প্রয়োজন। আমার জন্য এই পুরাতন কাপড়ই যথেষ্ট হইবে।”
মৃত্যুর মুহূর্ত একটু একটু করিয়া নিকটবর্তী হইতেছিল। হযরত আয়েশা সিদ্দিকা (রা) এই অস্তাচলমুখী চাঁদের শিয়রে বসিয়া অশ্রু বিসর্জন করিতেছিলেন। দুঃখ বেদনায় ভরা এক একটি কথা তাঁহার কণ্ঠনালী হইতে অশ্রুর বন্যার সহিত ভাসিয়া আসিতেছিল। বসিয়া বসিয়া তিনি কবিতা আবৃত্তি করিতেছিলেন- যাহার মর্ম হেইল-
“জ্যোতিষ্কের মতো এমন অনেক উজ্জ্বল চেহারাও রহিয়াছে, যাহার নিকট মেঘমালাও পানি ভিক্ষা করিত; তিনি ছিলেন এতিমদের আশ্রয়স্থল এবং বিধবাদের পৃষ্ঠপোষক।”
কবিতা শুনিয়া হযরত সিদ্দিক (রা) চক্ষু খুলিলেন এবং বলিতে লাগিলেন, “বৎস, এই কথা একমাত্র রসূলুল্লাহ (সা) সম্পর্কেই খাটে।” হযরত আয়েশা (রা) দ্বিতীয় একটি কবিতা আবৃত্তি করিতে লাগিলেন, যাহার মর্ম হইল-
“তোমার বয়সের শপথ, মৃত্যুর ঊর্ধ্বশ্বাস যখন আসিয়া উপস্থিত হয়, তখন ধন-সম্পদ কোন কাজে আসে না।”
হযরত আবু বকর (রা) বলিলেন, এই কথা বল- (আরবী*******)
-“মৃত্যু যন্ত্রণার সঠিক সময় আসিয়া উপস্থিহ হইয়াছে, উহা ঐ সময় যাহা হইতে তোমরা পলাইতেছিল।”- (কোরআন)
হযরত আয়েশা (রা) বলেন, মৃত্যুর সময় আমি আমার পিতার শিয়রে বসিয়া নিম্নের মর্ম সম্বলিত কবিতাটি আবৃত্তি করিয়াছিলাম-
“যাহার অশ্রু সর্বদা, বদ্ধ রহিয়াছে একদিন তাহাও প্রবাহিত হইবে। প্রত্যেক আরোহীর কোন না কোন গন্তব্যস্থান রহিয়াছে। প্রত্যেক পরিধানকারীকেই কাপড় দেওয়া হইয়া থাকে।!”
ইহা শুনিয়া আমর পিতা বলিতে লাগিলেন, কন্যা, এই ভাবে নয়, সত্য কথা এইরূপ যেইরূপ আল্লাহ বলিয়অছেনঃ (আরবী******)
মৃত্যু যন্ত্রণার সময় উপস্থিত হইয়াছে, উহা ঐ নিদারুণ সময় যাহা হইতে তোমরা পলায়ন করিতে।
ইন্তেকাল
এই কথা বলিতে বলিতে হযরত আবু বকরের পবিত্র জীবনের সমাপ্তি হইয়াছিল- (আরবী******)
-“হে আল্লাহ, আমাকে মুসলমান হিসাবে মৃত্যু দাও এবং তোমার সৎ বান্দাদের সহিত মিলিত করা।”
হিজরী ১৩ সনের ২৩ জুমাদাল আখের সোমবার দিন এশা ও মাগরেবের মধ্যবর্তী সময়ে তাঁহার পবিত্র রূহ এই পাপ দুনিয়া হইতে উঠিয়া যায়। এই সময় তাঁহর বয়স হইয়াছিল ৬৩ বৎসর। তাঁহার খেলাফত ছিল দুই বৎসর তিন মাস এগার দিন।
স্ত্রী হযরত আসমা বিনতে উমাইস (রা) গোসল দেন। আবদুর রহমান ইবনে আবু বকর শরীরে পানি ঢালিয়া দেন। হযরত ওমর জানাযার নামায পড়ান। রসূলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের পবিত্র সমাধিঘর সংলগ্ন স্থানে কবর খনন করা হইল।
রসূলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের স্কন্ধ বরাবর মাথা রাখিয়া হযরত আবু বরক (রা)-এর কবর রচনা করা হয়। হযরত ওমর, হযরত তালহা, হযরত ওসমান এবং জযরক আবদুর রহমান ইবনে আউফ (রা) পবিত্র লাশ কবরে নামাইলেন। এইভাবে রসূলে খোদা সাল্লাল্লাহু আলাইহে ওয়া সাল্লামের পর উম্মতের সবচাইতে জনপ্রিয়, সর্বজ নমান্য ব্যক্তিকে দুনিয়ার আকাশ হইতে চিরতরে ডুবাইয়া দেওয়া হইল। ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজেউন।

Comments

comments

Related Post